মার্জাররা নিরুদ্দেশ হয়, তবু ভালোবাসতে হয়/ শ্যামল কুমার সরকার

মার্জাররা নিরুদ্দেশ হয়, তবু ভালোবাসতে হয়

শ্যামল কুমার সরকার : ভেবেছিলাম ওকে ভালবাসবো না। কিন্তু তা আর পারলাম না। ওর বয়স প্রায় তিন মাস। আমাদের বাড়িতেই ওর জন্ম। জন্মের মাস খানেকের মধ্যে ও বিশ একুশ ফুট উপর হতে পড়ে অনেকটাই অবশ হয়ে গিয়েছিল। সাথে সাথে ওর পা গুলো মেসাজ করে দেই। ফলে বাবুটি স্বাভাবিক হতে থাকে।

গত বন্যায় ছানাটি বড় বিপদে পড়ে। ওকে কিছু কিছু খাবার দেই। বন্যার পরে ও হারিয়ে যায়। একদিন হঠাৎ আবার চলে আসে। খাতির হবার ভয়ে ওর দিকে কম তাকাই। আর ও বেশি করে আমার দিকে তাকাতে থাকে। তখন আমি আর পারি না।

ও এখন আমার পিছে পিছে ঘুর ঘুর করে। ওর একটি বোন আছে। আরেকটি বোন মারা গেছে। সেই ছোট বেলা হতে আমি ওদের চিনি। ওদের সাথে ভালো বাসা হয়ে গেলে আচমকা কখনো ওরা নিরুদ্দেশ হয়ে যায়। তখন যে কি খারাপ লাগে তা বলে বোঝানো যাবে না। আর এ জন্যই ওকে একটুও ভালো বাসতে চাইনি। এতো কিছুর পরেও বাবুটি আমাকে দেখলেই পাশে চলে আসে। গুড় গুড় শব্দ করে। তবুও আমি ওর সাথে কথা বলি না। কারণ বেশি তাকালে বেশি খাতির হয়ে যাবে। ও এসব কথা কিছুই বোঝে না। কিন্তু আমি জানি ভালোবাসা শুধুই কাদায়!!!

কড়চা/ এস কে এস

Facebook Comments
ভাগ