মুক্তিপণ আদায় চক্রের তিন সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে মানিকগঞ্জ পুলিশ

কড়চা রিপোর্ট : সাম্প্রতিক সময়ে লকডাউন ও ঈদ পূর্ববর্তী মানুষের নাড়ীর টানে বাড়ি ফেরার আকুতি ও জরুরি প্রয়োজনকে টার্গেট করে এক শ্রেণির দুর্বৃত্তের আবির্ভাব হয়েছে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে। গণপরিবহন বন্ধ থাকার সুযোগে বিভিন্ন ধরনের প্রাইভেট কার ও মাইক্রোবাস ভাড়া নিয়ে স্বাভাবিকের তুলনায় কম ভাড়ায় মোটামুটি অবস্থাপন্ন ব্যক্তিদের টার্গেট করে যাত্রী হিসেবে তুলে নেয় তারা। তারপর সুযোগমত হাত পা বেঁধে চালায় অবর্ণনীয় শারীরিক নির্যাতন। পারিবারিক সক্ষমতা অনুযায়ী দাবি করে মুক্তিপণ হিসেবে টাকা। সেই সাথে ওই ব্যক্তির কাছে যা থাকে তাও হাতিয়ে নেয়। মানিকগঞ্জ পুলিশের তৎপরতায় এই চক্রের তিনজন গ্রেপ্তার হয়েছে।

মানিকগঞ্জ সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ভাস্কর সাহা জানান, গণপরিবহন বন্ধ থাকার সুযোগ নিয়ে এক বা একাধিক চক্র ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে ভাড়া করা প্রাইভেটকার নিয়ে যাত্রী তুলে। এরপর ওই যাত্রীর কাছ থেকে সবকিছু লুট করে ও আটক রেখে বিকাশের মাধ্যমে টাকা আদায় করে। এরপর ওই ব্যক্তিকে নামিয়ে দেওয়া হয় কোন নির্জন স্থানে।

সম্প্রতি এমনই এক ঘটনার শিকার মো: ফারুক হোসেন(৪৩) আসেন মানিকগঞ্জ থানায়। অভিযোগকারী শিক্ষক উক্ত ব্যক্তি মানিকগঞ্জ বাসস্ট্যান্ড এলাকা হতে রাজবাড়ি যাওয়ার উদ্দেশ্যে একটি প্রাইভেটকারে উঠেন। উঠার পরপরই পাশের সিটে যাত্রীবেশে থাকা দুর্বৃত্তরা তার হাত পা বেঁধে মারধর শুরু করে দাবি করে লক্ষাধিক টাকা। পৃথক দুটি বিকাশ নম্বরে ৫০,০০০ টাকা পরিশোধের পরই তার মুক্তি মেলে।

উক্ত ঘটনার অভিযোগ পেয়ে দ্রুত মামলা রুজু করে মানিকগঞ্জ থানা পুলিশ। পুলিশ তদন্তে নেমে রোববার (৯ মে) রাতেই তিনজনকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়। এরা হলো যশোরের অভয়নগর এলাকার মোস্তাহিন শেখের ছেলে মোঃ আবুল বাশার (৪২), নড়াইল লোহাগড়া উপজেলার জব্বার শেখের ছেলে মো: আলীম হোসেন শেখ (৩৫) ও পাবনা জেলার সুজানগর উপজেলার ইন্তাজ প্রামানিকের ছেলে বাবর আলী বাবু (৩২)।

গ্রেপ্তারকৃতরা ঘটনার সঙ্গে সরাসরি জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে। এছাড়াও তাদের হেফাজত থেকে ঘটনায় ব্যবহৃত প্রাইভেট কার, লুন্ঠিত টাকা, স্টিলের পাইপ ও রশি দড়ি উদ্ধার করা হয়। তারা দীর্ঘদিন যাবৎ দেশের বিভিন্ন হাইওয়েতে এধরনের অপরাধ করছিলেন বলে পুলিশের কাছে স্বীকার করে। সোমবার গ্রেপ্তারকৃতদের আদালতে তোলা হয়। এরা আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দি দিয়েছে।

অপর দিকে দৈনিক ইত্তেফাকের মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি শহীদুল ইসলাম সুজন জানান, গত ২ মে রাতে নবিনগর থেকে মানিকগঞ্জে আসার পথে ওই চক্রের কবলে পড়েন। ওই চক্রের সদসরা তাকে মারধর করে টাকা পয়সা মোবাইল সেট ও অ্যাক্রিডেশন কার্ড নিয়ে যায়। এব্যাপারের তিনি আশুলিয়া থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।

কড়চা/ বি সি

Facebook Comments
ভাগ