ঘিওরে ওষুধের দাম বেশি নেয়ার অভিযোগ করে পুরস্কার পেলেন ভোক্তা

আব্দুর রাজ্জাক : ১৩ টাকার ওষুধের দাম নিয়েছেন ১৫ টাকা। ক্রেতা প্যাকেটের গায়ের মূল্য ১৩ টাকা বলার পরও দোকানদার তার কাছে ১৫ টাকা দাম রাখেন। এমনকি দাম বেশি রাখার কথা বললে উপরোক্ত দোকানদার অভিযোগকারীর উপর রেগে যান। এ বিষয়ে ক্রেতা অভিযোগ করে পুরস্কার পেলেন ১ হাজার টাকা। বিক্রেতাকে জরিমানা দিতে হলো ৪ হাজার টাকা।

সোমবার (২৬ এপ্রিল) জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর এক অভিযোগের প্রেক্ষিতে শুনানি শেষে এ জরিমানা করে।অভিযোগটি নিষ্পত্তি করেন ভোক্তা অধিকার মানিকগঞ্জ জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক আসাদুজ্জামান রুমেল। তিনি জানান, মেসেঞ্জারে মানিকগঞ্জ-১৮০০ গ্রুপের এডমিন আলফে সানী বেশি দামে ঔষধ কিনে প্রতারিত হওয়ার অভিযোগ দেন। অভিযোগে বলা হয়, ঘিওর বাসস্ট্যান্ডের মানিক ফার্মেসী থেকে ইনো কিনলে তার দাম রাখা হয় ১৫ টাকা। অভিযোগকারী প্যাকেটের গায়ের মূল্য ১৩ টাকা বলার পরও দোকানদার তার কাছে ১৫ টাকা দাম রাখেন। দাম বেশি রাখার কথা বললে উপরোক্ত দোকানদার অভিযোগকারীর উপর রেগে যান। ভোক্তার কাছে নির্ধারিত মূল্য অপেক্ষা অধিক মূল্যে পণ্য বিক্রয় করার বিষয়টি প্রমাণিত হয়। এ অপরাধে মানিক ফার্মেসিকে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন, ২০০৯ এর ৪০ ধারা মোতাবেক ৪০০০ টাকা জরিমানা আরোপ করে আদায় করা হয়। একই সঙ্গে আইন অনুযায়ী আদায়কৃত জরিমানার ২৫ শতাংশ অভিযোগকারীকে নগদ প্রদান করা হয়। অবশিষ্ট টাকা সরকারি কোষাগারে জমা করা হয়।

অভিযোগকারী আলফে সানী সরকারি ব্যবস্থাপনায় এমন সেবা পেয়ে আনন্দিত। যে কোন পণ্য বা সেবা ক্রয় করে প্রতারিত হলে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর এর হট লাইন ১৬১২১ নম্বরে অভিযোগ করার পরামর্শও দেন ভোক্তা অধিকার মানিকগঞ্জ জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক আসাদুজ্জামান রুমেল।

কড়চা/ এ আর

Facebook Comments
ভাগ